খিলাফত ও বাই’আত

তোমাদের মধ্যে যারা ঈমান আনে ও আমালে সালেহ করে, আল্লাহ তাদেরকে ওয়াদা দিয়েছেন যে, তাদেরকে অবশ্যই পৃথিবীতে খিলাফত (শাসনকর্তৃত্ব) দান করবেন। (সূরা নূর, আয়াতঃ ৫৫)

হযরত হুযায়ফা (রাযিআল্লাহু আনহু) বর্ণনা করেছেন। হযরত নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,

তোমাদের মধ্যে নবুওয়ত ততক্ষণ পর্যন্ত বর্তমান থাকবে যতক্ষণ পর্যন্ত আল্লাহ্চাহেন। এরপর আল্লাহ তার সমাপ্তি ঘটাবেন। তারপর প্রতিষ্ঠিত হবে নবুয়তের আদলে খিলাফত (খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ) এবং তা ততক্ষণ বর্তমান থাকবে যতক্ষণ পর্যন্ত আল্লাহ্চাইবেন। অতঃপর তিনি তারও সমাপ্তি ঘটাবেন। তারপর আসবে যন্ত্রণাদায়ক বংশের শাসন, তা ততক্ষণ পর্যন্ত বর্তমান থাকবে যতক্ষণ আল্লাহ ইচ্ছা করবেন। এক সময় আল্লাহর ইচ্ছায় এরও অবসান ঘটবে। তারপর প্রতষ্ঠিত হবে জবরদস্তিমূলক জুলুমের শাসন এবং তা তোমাদের উপর ততক্ষণ পর্যন্ত বর্তমান থাকবে যতক্ষণ আল্লাহ ইচ্ছা করবেন। অতঃপর তিনি তা অপসারণ করবেন তারপর পুনঃরায় আবার দুনিয়ার যমীনে খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ (নবুওয়তের আদলে খিলাফত) প্রতিষ্ঠিত হবে।” (মুসনাদে আহ্মদ, বায়হাকী, খাছায়েছুল কুবরা ইত্যাদি)

হাদীসটিতে “খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ” দুবার প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়েছে। প্রথম খিলাফত হযরত রসূলে পাক (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর ওফাতের পর এবং দ্বিতীয় খিলাফত মুসলমানদের চরম অবনতির পর

আব্দুল্লাহ্বিন উমর (রাযিআল্লাহু আনহু) বলেছেন,

আমি রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কে বলতে শুনেছি, “যে আনুগত্যের শপথ (বাইআত) থেকে তার হাত ফিরিয়ে নেয়, কিয়ামতের দিন আল্লাহ্তার সাথে এমন ভাবে সাক্ষাৎ করবেন যে, ব্যক্তির পক্ষে কোন দলিল থাকবেনা এবং যে ব্যক্তি এমন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করবে যে, যখন তার কাঁধে কোন আনুগত্যের শপথ নেই, তবে তার মৃত্যু হবে জাহেলি যুগের মৃত্যু।” (সহীহ্মুসলিম, হাদীস নং১৮৫১)

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s